ব্রেকিং নিউজ :
December 14, 2016

কাতার থেকে বিদায় কাফালা, খুশির সঙ্গে শঙ্কায় প্রবাসীরা!

image-6206-1481612043মধ্যপ্রাচ্যের দেশ কাতার বিদেশি শ্রমিকদের অধিকার পরিপন্থী, বিতর্কিত কাফালা শ্রম পদ্ধতি বাতিল করেছে। ডিসেম্বর ১৩ থেকে কাফালা নিয়ম বাতিল কার্যকর হয়েছে। ১২ ডিসেম্বর এক আনুষ্ঠানিক ঘোষণায় এই পদ্ধতি বাতিলের ঘোষণা দেন দেশটির শ্রমমন্ত্রী ইসা বিন সাদ আল-জাফালি আল-নুয়াইমি। এই কাফালা নিয়ম বাতিলে খুশি বাংলাদেশিরাসহ বিভিন্ন দেশের প্রবাসী।

২০২২ সালের ফুটবল বিশ্বকাপ আয়োজক দেশটিতে এটি শ্রম খাতের সবচেয়ে বড় সংস্কার বলে বলছেন শ্রম বিশেষজ্ঞরা। এ বিষয়ে শ্রমমন্ত্রী নুয়াইমি বলেন, ২১ লাখের মতো প্রবাসী শ্রমিকের দেশটিতে কাফালার বদলে আধুনিক, চুক্তিভিত্তিক পদ্ধতি প্রতিষ্ঠিত হবে। তিনি আরও বলেন, কাতারে সকল বিদেশি কর্মীর অবস্থার উন্নতি এবং অধিকার রক্ষার পথে একধাপ অগ্রগতি এই নতুন আইন। এই রক্ষাকবচের ফলে চাকরীর পরিবর্তনের সুযোগ নিশ্চিতসহ স্বাধীনতা নিশ্চিত হবে।

কাতারের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা বলেন, কোন শ্রমিকের সাথে দুর্ব্যবহার করা হলে সে সহজেই চাকরী পরিবর্তন করতে পারবে। নতুন আইনে শ্রমিকদের অধিকার আরও সুরক্ষিত হবে জানান ওই কর্মকর্তারা।

‘কাফালা’ হলো এমন একটি পদ্ধতি যেখানে সব বিদেশি শ্রমিকের নিয়ন্ত্রক তার ‘কাফিল’ বা মালিক। শ্রমিকদের বেতন-ভাতা ঠিক না থাকলেও চাকরি ছাড়ার কোনো সুযোগ নেই। চাকরি বদলানোর সুযোগও পায় না শ্রমিকরা। আর চাকরি ছেড়ে দিলে আরোপ করা হয় দু’বছরের নিষেধাজ্ঞা।

 এ পদ্ধতি নিয়ে বহুদিন ধরেই দেশটিতে চলছিল আলোচনা-সমালোচনা। অবশেষে তা বাতিল করলো কাতার সরকার। নতুন আইনানুসারে, শ্রমিকদের দেশে ফিরতে চাইলে কারো অনুমতি নিতে হবে না। চাকরি বদলের সুযোগও থাকছে। বর্তমান কাফিলের অনুমতি নিয়ে যেকোনো শ্রমিক অন্য কাফিলে চাকরি নিতে পারবেন। এছাড়া চুক্তি শেষ হবার আগেই ছেড়ে দিতে চাইলে, নিয়োগকারী এবং সরকারি অনুমোদন সাপেক্ষে তা করতে পারবেন বিদেশি শ্রমিকরা।

তবে নতুন এ আইনের অপব্যবহার হতে পারে বলেও ধারণা করছে অনেক শ্রমিক সংগঠন। এ আইনের ফলে শ্রমিক ছাঁটাইয়ের ঘটনা বেড়ে যেতে পারে। যেহেতু এখন থেকে সকল বিদেশী শ্রমিককে চুক্তিতে নিয়োগ করা হবে, ফলে নিয়োগকারীর খুশিমতো শ্রমিক ছাটাই হবার আশংকা রয়েছে।

কোন শ্রমিক যদি ছাটাই হয়, এবং সেই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগ না করে কিংবা যদি তার অভিযোগ আদালত আমলে না নেয়, সেক্ষেত্রে নতুন আইন অনুযায়ী ঐ শ্রমিক পরবর্তী চার বছরের মধ্যে আর কাতারে কাজের অনুমতি পাবে না। তাছাড়া, আদালতে রায়ে যদি কোন শ্রমিককে দেশে পাঠিয়ে দেবার সিদ্ধান্ত হয়, পরবর্তীতে কাতারের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অনুমতি ছাড়া সেদেশে আর ঢুকতে পারবেন না ওই ব্যক্তি।

বাংলাদেশ২৪অনলাইন/টিএম

একই রকম সংবাদ

সম্পাদকঃ আলী অাহমদ
যোগাযোগঃ ১৪৮/১, গ্রীণ ওয়ে, নয়াটোলা, মগবাজার, ঢাকা-১০০০
ফোনঃ ০১৭৯৪৪৪৯৯৯৭-৮
ইমেইলঃ [email protected]

Copyrıght Bangladesh24online @ 2015.               এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি ।