ব্রেকিং নিউজ :
December 30, 2016

৬৫ বছর বয়স্ক বছিরনই পিএসসিতে স্কুলসেরা

দেশের বয়স্ক পিএসসি পরীক্ষার্থী বাছিরন নেছা ৩ পয়েন্ট পেয়ে পাস করেছেন কৃতিত্বের সাথে। ধবধবে সাদা শাড়ি ও ওড়না পরে পরীক্ষার ফলাফল জানতে এসে জানেন বিদ্যালয়ের সেরা তিনিই। হোগলবাড়ীয়া পুর্বপাড়া প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৬ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে বাছিরন নেছা জিপিএ-৩ পেয়ে বিদ্যালয় সেরা হন। তার এই কৃতিত্বে সবাই মুগ্ধ। তাকে ঘিরে এলাকাবাসী ও স্কুল কর্তৃপক্ষের ব্যাপক উদ্দীপনা।

৩৫ বছর আগে স্বামীহারা এক ছেলে ও দুই মেয়ের জননী বাসিরন খাতুন ছেলে মহির উদ্দিনের সঙ্গেই থাকেন। ছেলে মেয়েদের সন্তানরাও  বিভিন্ন কলেজে ও বিদ্যালয়ে লেখাপড়া করলেও তিনি পড়াশুনা করতে পারেননি। প্রচণ্ড আগ্রহ থেকে তিনি নতুন করে আবার লেখাপড়া শুরু করেন, এক কিলোমিটার মেঠোপথ হেঁটে বিদ্যালয়ে আসা যাওয়া করতে থাকেন। বৃহস্পতিবার দুপুরে সারাদেশের ন্যায় বছিরনের স্কুল হোগলবাড়িয়া পূর্বপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পিইসি পরীক্ষায় ৬৫ বছর বয়সীর উত্তীর্ণ হবার ফলাফলে সবাই অবাক হয়ে যান।

বৃহস্পতিবার দুপুর দুইটার দিকে মেহেরপুরের সংরক্ষিত মহিলা এমপি সেলিনা আখতার বানু ফলাফল ঘোষণার সময় উপস্থিত ছিলেন বিদ্যালয়ে। এ সময় তিনি বাছিরনের কারণে বিদ্যালয়টি পাকাকরণের ঘোষণা দেন এবং বিষয়টি নিয়ে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ে কথা বলেছেন বলেও জানান। তিনি আশা করছেন, আগামী ৬ মাসের মধ্যে বিদ্যালয় পাকাকরণের কাজ শুরু হবে। পরে মহিলা এমপি ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার বাছিরনের বাড়িতে গিয়ে মিষ্টি খাইয়ে এসেছেন। মহিলা এমপি বাছিরনের লেখাপড়ার ভারও নিয়েছেন। তিনি বলেন, বাসিরন শুধু মেহেরপুরের না তিনি এখন বাংলাদেশের গর্ব। তার দেখাদেখি এখন অনেক বয়স্ক মানুষ পড়ালেখার প্রতি আগ্রহী হবেন। বাসিরন এখন সারা দেশের বয়স্ক মানুষের শিক্ষার উদাহরণ হবে। বাসিরন মেহেরপুরের গাংনীর হোগলবাড়িয়া গ্রামের বাসিন্দা।

৬৫ বছরে পিইসি পরীক্ষায় পাস করে তিনি সারা দেশের বয়স্ক মানুষের জন্য উদাহরণ হয়ে গেছেন। তার পাস করার খবর এলাকায় পৌঁছানোর পরপরই পরিবারের পাশাপাশি গ্রামের লোকজনের মধ্যে আনন্দর বন্য বয়ে যায়। লোকজন তাকে একনজর দেখার জন্য বাড়িতে ভিড় করে। তার পরিবারের পক্ষ থেকে সকলকে মিষ্টি মুখ করানো হয়। এ খবর পেয়ে মেহেরপুরের মহিলা এমপি সেলিনা আক্তার বানুও তার বাড়িতে ছুটে যান। তিনি বাসিরনকে মিষ্টি মুখ করান ও নিজে বাসিরনের হাতে মিষ্টি খান। বাসিরন বলেন, আমি আমার ৫ বছরের কষ্টের পুরস্কার পেলাম। আমি থেমে থাকতে চাইনা এ বছর ৬ষ্ঠ শ্রেণীতে ভর্তি হয়ে আরো বেশি পড়ালেখা করতে চাই। এবার আমার লক্ষ এসএসসি পাস করা। এটা বুলে বুঝাতে পারব না আজ আমার কত ভালো লাগছে। ওপরআলা (সৃষ্টিকর্তা) আমার দিকে মুখ তুইলি তাকাইছে। আসলে স্কুলে পড়ার আনন্দই আলাদা।

বাংলাদেশ২৪অনলাইন/এসএম/টিএম

একই রকম সংবাদ

সম্পাদকঃ আলী অাহমদ
যোগাযোগঃ ১৪৮/১, গ্রীণ ওয়ে, নয়াটোলা, মগবাজার, ঢাকা-১০০০
ফোনঃ ০১৭৯৪৪৪৯৯৯৭-৮
ইমেইলঃ [email protected]

Copyrıght Bangladesh24online @ 2015.               এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি ।