ব্রেকিং নিউজ :
July 4, 2015

ময়মনসিংহের নান্দাইলে বাবা ও তিন ছেলেকে হত্যার ঘটনায় অভিযুক্ত একজনের লাশ উদ্ধার, আটক ১

kill1_527292005ময়মনসিংহ জেলার নান্দাইলে বাবা ও তিন ছেলে খুনের কিলিং মিশনে অংশ নেন চার থেকে পাঁচজন। এর মধ্যে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা থেকে আসা দুই কিলার অংশ নেন নৃশংস এ হত্যাযজ্ঞে। স্থানীয় লোকজনের সঙ্গে কথা বলে এমনই চাঞ্চল্যকর তথ্য পেয়েছে নান্দাইল মডেল থানা পুলিশ।

এ চার হত্যাকাণ্ডের প্রাথমিক আলামত যাচাই করে সংশ্লিষ্ট থানার দ্বিতীয় কর্মকর্তা উপ-পরিদর্শক (এসআই) মুরাদ আলী শেখ জানিয়েছেন এসব তথ্য। শুক্রবার দিনগত রাত সোয়া ১টার দিকে বাংলানিউজকে টেলিফোনে তিনি এসব কথা জানান।

জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে এ চার খুন সংঘটিত হয়েছে বলে প্রথম দিকে খবর ছড়িয়ে পড়লেও পুলিশ এসব খুনের প্রাথমিক কারণ উদঘাটন করেছে। টাকা-পয়সা ধার না দেওয়ার ঘটনায় সৃষ্ট পারিবারিক কলহেই এ হত্যাকাণ্ড হয়েছে বলে জানান এসআই মুরাদ আলী শেখ।

তিনি জানান, উপজেলার চন্ডিপাশা ইউনিয়নের বাঁশাটি গ্রামের বিল্লাল মিস্ত্রি ও লাল মিয়া সহোদর দুইভাই। শুক্রবার (০৩ জুলাই) সকালে নিজের ছেলে কামালের ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা ছাড়াতে বোন কোহিলা বেগমের কাছে ৩০ থেকে ৪০ হাজার টাকা দাবি করেন লাল মিয়া।

কিন্তু তার বোন এ টাকা না দেওয়ায় তাকে এবং তার তিন মেয়েকে মারপিট করে লাল মিয়া ও তার ছেলেরা। পরবর্তীতে লাল মিয়ার ভাই বিল্লাল এ ঘটনা শুনে তার ছেলেদের নিয়ে গিয়ে প্রতিবাদ করে। এতে তাদের মধ্যে পাল্টা মারপিট হয়।

এসব ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে নান্দাইল মডেল থানার দ্বিতীয় কর্মকর্তা (সেকেন্ড অফিসার) উপ-পরিদর্শক (এসআই) মুরাদ আলী শেখ জানান, স্থানীয়রা বলাবলি করছিলেন লাল মিয়া ও তার ছেলেরা পরিকল্পিতভাবে এ চার খুনের ঘটনা ঘটিয়েছেন।

তিনি বলেন, স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান এমদাদুল হক ভূইয়াসহ কয়েকজন আমাদের জানিয়েছেন- লাল মিয়ার ছোট ছেলে জামাল থাকেন ব্রাহ্মণবাড়িয়ায়। তিনিই হয়তো ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে ভাড়া করে দু’জন লোককে নিয়ে আসেন। পরে লাল মিয়াসহ ৪/৫ জন মিলে শুক্রবার (০৩ জুলাই) রাত সোয়া ১০টার দিকে বড় ছুরি দিয়ে কুপিয়ে বিল্লাল মিস্ত্রি (৫৫) ও তার তিন ছেলে ফরিদ (৩০), পাভেল (১৮) ও হিমেলকে (১৬)  হত্যা করে।

এ সময় ধারালো অস্ত্রের আঘাতে গুরুতর আহত হয়েছেন বিল্লালের স্ত্রী বানেছা (৫২)। গুরুতর অবস্থায় তাকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে বলে জানান উপ-পরিদর্শক (এসআই) মুরাদ আলী শেখ।

তবে ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে আসা দুই অজ্ঞাত ব্যক্তি পেশাদার খুনি কিনা, এ প্রশ্নের কোনো সুস্পষ্ট জবাব দিতে পারেননি তিনি।

এদিকে, শুক্রবার দিনগত রাত ২টার দিকে নিহতদের মরদেহ ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করে নান্দাইল মডেল থানায় নিয়ে যায় পুলিশ। এ হত্যাকাণ্ডে অভিযুক্ত লাল মিয়া, তার দুই ছেলেসহ অন্যদের ধরতে পুলিশের ৪টি টিম ইতোমধ্যেই মাঠে নেমেছে, জানান উপ-পরিদর্শক (এসআই) আব্দুল মোতালিব।

তিনি আরও জানান, কিলিং মিশন শেষে হত্যাকারীরা পাশের ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলায় পালিয়ে যেতে পারে। তাদের ধরতে পুলিশি অভিযান চলছে।

একই রকম সংবাদ

সম্পাদকঃ আলী অাহমদ
যোগাযোগঃ ১৪৮/১, গ্রীণ ওয়ে, নয়াটোলা, মগবাজার, ঢাকা-১০০০
ফোনঃ ০১৭৯৪৪৪৯৯৯৭-৮
ইমেইলঃ [email protected]

Copyrıght Bangladesh24online @ 2015.               এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি ।