ব্রেকিং নিউজ :
February 6, 2016

ভেজাল ওষুধে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে রোগীরা, বাড়ছে সঙ্কট

৭নকল বা ভেজাল ওষুধে দেশের বাজার ছেয়ে আছে। এসব ওষুধের কারণে ক্ষতিগ্রস্ত রোগীদের সুরক্ষার কোনো ব্যবস্থাও নেই। শুধু মাঝে মধ্যে অভিযান চালিয়ে ভেজাল বা নকল বা অনুমোদনহীন বা নিষিদ্ধ ওষুধ জব্দ করে, দুই-একজনকে সাজা দেয় সরকার। এতে বন্ধ হচ্ছে না নকল বা ভেজাল ওষুধ।

বিশেষজ্ঞরা বলেন, নকল-ভেজাল ওষুধ প্রতিরোধের দায়িত্ব রাষ্ট্রের। এসব ওষুধে ক্ষতিগ্রস্তদের চিকিৎসা দিয়ে সারিয়ে তোলার দায়িত্বও রাষ্ট্রের। নকল বা ভেজালকারী প্রতিষ্ঠান চিহ্নিত করে তাদের কাছ থেকে আদায় করা জরিমানার অর্থ দিয়েও রাষ্ট্র সেটা করতে পারে। কিন্তু সে রকম উদ্যোগ এ দেশে নেই।

ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তর সূত্র জানায়, ২০১৫ সালের জানুয়ারি থেকে ১৩ ডিসেম্বর পর্যন্ত সারা দেশে মোবাইল কোর্টের অভিযানের সময় এক হাজার ১৮৯টি মামলা দেওয়া হয় অবৈধ, ভেজাল বা চোরাই ওষুধ বিক্রি, সংরক্ষণ, আমদানি ও উৎপাদনের অভিযোগে। এ সময় ৩১ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড দেওয়া হয়। ১২টি কারখানা, ৪৪টি ফার্মেসি ও দুটি গোডাউন সিলগালা করা হয়। একই সঙ্গে ২২ কোটি ৩৪ লাখ ৮৮ হাজার ৪০০ টাকার মন্দ ওষুধ জব্দ করা হয়।

বাংলাদেশ২৪অনলাইন/এসএম

একই রকম সংবাদ

সম্পাদকঃ আলী অাহমদ
যোগাযোগঃ ১৪৮/১, গ্রীণ ওয়ে, নয়াটোলা, মগবাজার, ঢাকা-১০০০
ফোনঃ ০১৭৯৪৪৪৯৯৯৭-৮
ইমেইলঃ bangladesh24online.news@gmail.com

Copyrıght Bangladesh24online @ 2015.               এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি ।