ব্রেকিং নিউজ :
February 17, 2016

এটিএম বুথে আপনার গচ্ছিত টাকা কতটুকু নিরাপদ? (দেখুন ভিডিওসহ)

Hacked_ATM

বর্তমান যুগে টাকা উত্তোলনের সবথেকে সহজ আর নিরাপদ মাধ্যম হলো এটিএম মেশিন। ব্যাংক একাউন্ট আছে আর এটিএম বুথ ব্যবহার করেন না এমন মানুষ আজকালকার যুগে মেলা দায়। দিনদিন এই ব্যবস্থা আরও জনপ্রিয় ও যুগোপযোগী হচ্ছে।

কী অদ্ভুত না আপনি একটি কার্ড ঢুকিয়ে দিচ্ছেন মেশিনে, কিছু নম্বর চাপছেন আর মেশিন থেকে টাকা বেরিয়ে আসছে! কী হয় এটিএম মেশিনের ভেতরে কখনও ভেবে দেখেছেন? যখন আপনি আপনার ডেবিট অথবা ক্রেডিট কার্ডটি এটিএম এ প্রবেশ করান, এটি আপনার কার্ডের পিছে অবস্থিত ম্যগনেটিক স্ট্রিপ থেকে তথ্য সংগ্রহ করে। তবে এই ম্যগনেটিক স্ট্রিপে কী তথ্য থাকবে তা আপনার ব্যাংক নির্ধারণ করবে। বলা যায় এটি আপনার তথ্যভাণ্ডার এর একটি হার্ডকপি। প্রত্যেকটি কার্ডের একটি নির্দিষ্ট নম্বর থাকে যা কি না এই ম্যগনেটিক স্ট্রিপের নিচেই থাকে, এছাড়া আপনার পিন নম্বর এবং কার্ডের মেয়াদোর্ত্তীণের তারিখ ও সংযুক্ত থাকে। কার্ডের এই তথ্য পড়ার জন্য এটিএম মেশিনের কার্ড রিসিভারে দুইটি সেন্সর থাকে। একটি কার্ডের মেয়াদ, অন্যটি পিন নাম্বার সনাক্ত করে।

মেশিনে কার্ড প্রবেশ করানোর পরপর এটি আপনার কাছে সর্বপ্রথম যা চায় তা  হলো কার্ডের পিন নম্বর। আপনি সঠিক পিন নম্বর দেয়ার সাথে সাথেই এটিএম মেশিন আপনার ব্যংক একাউন্টের সাথে সম্পর্ক স্থাপন শুরু করে দেয়। ব্যংক এবং এর এটিএম মেশিনগুলোর মধ্যে বিশাল একটি আভ্যন্তরীণ নেটওয়ার্ক থাকে। এই নেটওয়ার্কের মধ্যে যেসকল ব্যাংক অন্তর্ভুক্ত থাকে আপনি শুধু সেখান থেকেই আপনার টাকা উত্তোলন করতে পারবেন। ফোন লাইন, ইন্টারনেট, স্যাটেলাইট এবং কেন্দ্রীয় কম্পিউটারের সহায়তায় এই নেটওয়ার্ক নিজেদের মধ্যে যোগাযোগ বজায় রাখে।

এটিএম মেশিনের অভ্যন্তরে বিভিন্ন ট্রে তে টাকা জমা থাকে। আপনি কতো টাকা তুলতে চাচ্ছেন তা জানানোর পরেই নির্দিস্ট ট্রে থেকে টাকা মেশিনের মাধ্যমে বের হয়ে আসবে। এটিএম মধ্যে একটি রোলার সদৃশ অংশ থাকে যার মধ্য থেকে টাকা বেরিয়ে আসার সময় এর ঘনত্ব দেখে মেশিন পরীক্ষা করে একটির বেশি টাকা চলে আসছে না তো।

আচ্ছা আপনার মাথায় একটি প্রশ্ন আসছে না যে, লক্ষ লক্ষ টাকা এভাবে মেশিনের মধ্যে পুরে রাস্তায় ফেলে রাখা হয়, চুরি হয়ে যাবার সম্ভাবনা তো ব্যাপক।  আসলে নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা যাকে বলে এই টাকা তেমন নিরাপদেই রাখা হয়। তবে তা কোন পুলিশি পাহারায় নয়, এই যন্ত্রে আভ্যন্তরীন নিরাপত্তা ব্যবস্থা থাকে। এটিএম মেশিনের সাথে বিন্দু পরিমাণ জোর জবরদস্তি হলেই যেসব ট্রে তে টাকা থাকে তা একা একাই বিস্ফোরিত হয় আর এর মধ্য থেকে কালি ছিটকে বেরিয়ে সব টাকা নষ্ট হয়ে যায়। তাই চোরের চুরি করে কোন লাভ ই হবে না। এছাড়া কোন মেশিন যদি চুরি করার প্রচেষ্টা করা হয় তাহলে জিপিএস ব্যবস্থার মাধ্যমে এর খবর সাথে সাথে নিকটস্থ প্রশাসন এর কাছে চলে যাবে।

তাই বলা যায় এটিএম মেশিনের বদৌলতে মানুষের ব্যংক এ গিয়ে লাইন এ দাঁড়িয়ে টাকা উত্তোলনের হয়রানি যেমন কমেছে তেমনি এটি অর্থ লেনদেনের সম্পূর্ণ একটি নিরাপদ ব্যবস্থাও প্রদান করেছে।

ফাহমিদা ফারজানা অনন্যা

একই রকম সংবাদ

সম্পাদকঃ আলী অাহমদ
যোগাযোগঃ ১৪৮/১, গ্রীণ ওয়ে, নয়াটোলা, মগবাজার, ঢাকা-১০০০
ফোনঃ ০১৭৯৪৪৪৯৯৯৭-৮
ইমেইলঃ [email protected]

Copyrıght Bangladesh24online @ 2015.               এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি ।