ব্রেকিং নিউজ :
July 30, 2015

বিদ্যুতের জন্য পরনির্ভশীলতা কাম্য নয়

 

 

sign_here-770x437সরকার ৩বছর ধরে বিদ্যুৎ আমদানি করছে। নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহ নিশ্চিত করার জন্য সরকারের এই পদক্ষেপ। জন দুর্ভোগ লাঘবে সরকারের আন্তরিকতার অভাব নেই- এই পদক্ষেপ থেকে তা বোঝা যায়। কিন্তু আমদানি করার পরও বিদ্যুৎ সরবরাহে কেন হ-য-ব-র-ল অবস্থা- আমাদের বোধগম্য নয়।

তিন বছর মেয়াদি চুক্তির মেয়াদ ১ আগষ্ট শেষ হচ্ছে। নতুন ভাবে ৯ বছর মেয়াদি একটি চুক্তি স্বাক্ষরিত হবে। এতে ১ হাজার ১০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ আনা হবে। মজার ব্যাপার হলো- একই রাষ্ট্র থেকে পৃথক দরে বিদ্যুৎ কিনছে পিডিবি। ভারতের রাষ্ট্রয়াত্ত্ব প্রতিষ্ঠানে এক ইউনিট বিদ্যুতের দর সাড়ে তিন টাকার একটু কম, বেসরকারি খাতের একই পরিমাণ বিদ্যুতের দাম সাত টাকা। জেনে-শুনে পিডিবি এখানে লোকসান গুনছে কেন, কোন ঘাপলা নেই তো? রাষ্ট্রয়াত্ত্ব প্রতিষ্ঠান থেকেই বিদ্যুৎ আমদানির সব পথ কি বন্ধ হয়ে গেছে? চড়া দামেও বিদ্যুৎ আমদানির বিষয়ে পিডিবির যুক্তি হলো- জ্বালানি তেলে উৎপাদন খরচের চেয়ে আমদানি করা বিদ্যুতের দাম কম পড়ে। আপাতদৃষ্টিতে এই যুক্তিকে গ্রহণযোগ্য মনে হলেও মেনে নেওয়া উচিত হবে না।  জ্বালানি তেলে উৎপাদিত বিদ্যুতের ইউনিটপ্রতি খরচ পড়ে ১৩ টাকার উপরে। কিন্তু কয়লাকেন্দ্রকি বিদ্যুৎ উৎপাদনের খরচ ‍তুলনামুলক কম। হিসাবে দেখা গেছে, আমদানি করার পরও কযলা থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদনে খরচ পড়বে সাত থেকে আট টাকা। প্রশ্ন হলো পিডিবি এই পদ্ধতিতে বিদ্যুৎ উৎপাদনের উদ্যোগ গ্রহণ করছে না কেন? এ প্রক্রিয়ায় বিদ্যুৎ উৎপাদন করা হলে- বিদ্যুতের জন্য অন্য রাষ্ট্রের মুখাপেক্ষী হয়ে থাকতে হবে না। দ্বিতীয় দেশের একটি বৃহ জনগোষ্ঠীর কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হবে। বিষয়টি সংশ্লিষ্টদের গুরুত্বের সঙ্গে অনুধাবন করা উচিত। ভালো হবে- বিদ্যুতের জন্য অন্যের উপর নির্ভরশীলতা থেকে বের হয়ে আসা।

সরকার বিদ্যুৎ খাতে কোটি কোটি টাকা ভুর্তকি দিচ্ছে। বেশির ভাগ গ্রাহক নিয়মিত  বিদ্যুৎ বিল দিচ্ছে। তারপরও প্রতিবছর বিদ্যুৎ সরবরাহকারী সরকারি প্রতিষ্ঠানের ঘাড়ে থাকছে লাখ লাখ টাকা লোকসানের বোঝা। প্রতিষ্ঠানে কর্মরতদের বিরুদ্ধে রয়েছে দুর্নিীতির অভিযোগ। ধারণা করা অমুলক হবে না- একারণেই লোকসানের বোঝা নামছে না প্রতিষ্ঠানের ঘাড় থেকে। আর চুরি করে বিদ্যুৎ ব্যবহারে ওই সব কর্মকর্তার সংশ্লিষ্টতা থাকায় নিরবিচ্ছিন্ন ভাবে বিদ্যুৎ সরবরাহ বিঘ্নিত হচ্ছে। চুরি ঠেকানো গেলে, বিদ্যুতের অপচয় রোধ হবে। কমে আসবে লোডশেডিং।

সরকারের উচিত হবে, অধিকভাবে পর নির্ভরশীলের মনোভাব থেকে বের হয়ে আসা। দেশেই কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র চালু করার জন্য উদ্যোগ নেওয়া। পিডিবিতে শুদ্ধি অভিযান চালানো। এই সেক্টরের দুর্নীতিবাজদের কঠোর ভাবে দমন করা। বিষয়টি যত দ্রুত উপলব্ধি করা যাবে, ততই দেশের জন্য মঙ্গলকর। এক্ষেত্রে সরকারের শুভবুদ্ধির উদয় হোক।

 

একই রকম সংবাদ

সম্পাদকঃ আলী অাহমদ
যোগাযোগঃ ১৪৮/১, গ্রীণ ওয়ে, নয়াটোলা, মগবাজার, ঢাকা-১০০০
ফোনঃ ০১৭৯৪৪৪৯৯৯৭-৮
ইমেইলঃ [email protected]

Copyrıght Bangladesh24online @ 2015.               এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি ।