ব্রেকিং নিউজ :
October 11, 2016

বাটলারের আউটের পর চট্রগ্রামে পিন-পতন নীরবতা!

253267

তীরে এসে তরী ডুবে যাওয়ায় যন্ত্রণা কত তীব্র হতে পারে প্রথম ম্যাচে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে তা ঠিকই টের পেয়েছেন টাইগাররা। অপরদিকে যন্ত্রণায় ক্ষত-বিক্ষত আহত বাঘের হুংকার কতটা  শক্তিশালী রুপ ধারণ করতে পারে একদিন যেতে না যেতেই সেই মিরপুরের মাঠেই উপলব্ধি করতে হলো ইংলিশদের।  জয়ের স্বপ্নে বিভোর ইংল্যান্ডকে পাঁড়ার দলে নামিয়ে সিরিজে সমতা ফিরিয়ে আনবে মাশরাফির দল তা হয়তো দু:স্বপ্নেও আসেনি বাটলারের। তাই হয়তো তাসকিনের বলে রিভিউ আবেদনের পর থার্ড আম্পায়ারের সঠিক  সিদ্ধান্তে মেনে নেওয়াটা নিতান্তই কষ্টকর ছিল তাঁর কাছে। বহি:প্রকাশ হিসেবে মাঠে দেখিয়েছেন উগ্রতা, অখেলোয়াড় সুলভ আচরণ। দিন শেষে জানিয়েছেন, মাশরাফিদের উদযাপনটা পছন্দ হয়নি তার। তাই বহি:প্রকাশে এমন আচরণ।

এমন দৃষ্টিকটু, উগ্র আচরণে শাস্তির মুখোমুখি হবে ভদ্র জাতি হিসেবে পরিচিত ইংলিশ দলের অধিনায়ককে। এমনটাই অনুমিতই ছিল। ঘটলো উল্টোটা। কেনইবা নয়। আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিলর (আইসিসি) তিন মোড়লের ‘সম্মানিত’ এক আসন যে তাদেরই নিজস্ব সম্পত্তি।  আবার সেদিন মিরপুরে  ম্যাচ রেফারির  আসনে ছিলেন ভারতের সাবেক পেস বোলার জাভাগাল শ্রীনাথ।  ব্যাস , সোনাই সোহাগা।  শাস্তির ঘোষণা আসলো।

খেলোয়াড়দের জন্য আইসিসি’র কোড অব কন্ডাক্টের ২.১.৭ ধারা ভঙ্গ করেছেন মাশরাফি ও সাব্বির, যা আন্তর্জাতিক ম্যাচে কোনো ক্রিকেটারের আউটের পর কাউকে ক্ষ্যাপানো বা  খুঁচিয়ে আগ্রাসী করার মতো ভাষা, কাজ বা অঙ্গভঙ্গী করার সঙ্গে সম্পর্কিত। জরিমানা গুনতে হবে মাশরাফি-সাব্বিরকে।

কি হলো বাটলারের? তেমন কিছুই না। আন্তর্জাতিক ম্যাচে আপত্তিকর বা অপমানজনক ভাষা বা অঙ্গভঙ্গী’ করা সম্পর্কিত ২.১.৪ ধারা ভাঙায় ইংলিশ এই অধিনায়কের নামের পাশে শুধুই তিরস্কার।

এটাই প্রথম নয়, আইসিসির একচোখা নীতি এর আগেও দেখেছে বাংলাদেশের ক্রিকেট ভক্তরা। আইনের রক্ষক হয়ে যখন কোন আন্তর্জাতিক সংস্থা কোড অব কন্ডাক্টের দোহাই দিয়ে এমন শাস্তির বিধান জারি করে তখন কী বা করার থাকবে, কী বা বলার? প্রতিবাদ জানাতে গেলে যদি দর্শকদের জন্য কোড অব কন্ডাক্টের কোন ধারা ব্যবহার করে বসেন আইসিসি।

তাহলে কি শুধুই চুপচাপ মেনে নেওয়া। চট্রগ্রামের মাঠে চৃুপচাপ থেকেই প্রতিবাদ জানানোর এক অদ্ভুত কিন্তু বাস্তবধর্মী উপায় বের করেছেন ক্রিকেট পাগল এক ভক্ত। রাকিব হেমন্ত নামের এক ফেইসবুক ব্যবহারকারী জানিয়েছেন, পরের ম্যাচে বাটলার আউট হলে পুরো গ্যালারি মুখে আঙুল দিয়ে ‘চুপ’ হয়ে যাবে! পিন-পতন নীরব হয়ে যাওয়ার ভংগি হতে হবে সেটা! সমস্যা না থাকলে যোগ দেবেন ক্রিকেটাররাও’।  ক্রিকেট মাঠে প্রতিবাদের নতুন এই ভঙ্গি হতে পারে আইসিসি’র বিরুদ্ধে প্রতিবাদের সঠিক ভাষা।

হেমন্তের প্রতিবাদের ভাষা মনে ধরেছে ফেইসবুক ব্যবহারকারীদের, ইতিবাচক সাড়া পাচ্ছেন তিনি। বাটলারের আউটের পর চট্রগ্রামের সাগর ঘেষা স্টেডিয়াম হবে কয়েক মূহুর্তের জন্য শব্দহীন স্টেডিয়াম। প্রতিবাদের এই রকম ভাষা আজ পর্যন্ত ক্রিকেট বিশ্বে কেউ দেখেছি কী না তা জানা যায়নি। তবে ফেইসবুক ব্যবহারকারী ক্রিকেট পাগল ভক্তরা তা ছড়িয়ে দিচ্ছেন চট্রগ্রামে স্টেডিয়ামে টিকেট পাওয়া দর্শকদের মধ্যে। হাজার হাজার মোবাইলের আলো জ্বালিয়ে বিশ্ববাসীকে যেভাবে এক অদ্ভুত সৌর্ন্দয্য ‍উপহার দেয় বাংলাদেশের ক্রিকেট পাগল দর্শকেরা। ঠিক তেমনি মুখে আঙুল দিয়ে চুপ থেকে প্রতিবাদের  অন্য রকম এক সৌর্ন্দয্য দেখতে অপেক্ষা মাত্র কয়েক ঘন্টার।

এরপর চোখ খুলে অন্ধকার দেখা বা আলো খোঁজা আইসিসি’র একান্ত ব্যক্তিগত বিষয়।

মো:রিয়াজুল হোসেন ভূঁইয়া (জিকো) :সাংবাদিক

ইমেল: [email protected] 

 

একই রকম সংবাদ

সম্পাদকঃ আলী অাহমদ
যোগাযোগঃ ১৪৮/১, গ্রীণ ওয়ে, নয়াটোলা, মগবাজার, ঢাকা-১০০০
ফোনঃ ০১৭৯৪৪৪৯৯৯৭-৮
ইমেইলঃ [email protected]

Copyrıght Bangladesh24online @ 2015.               এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি ।